৪ টি কারণ কেন মিন্ট উবুন্টুর থেকে ভালো

৪ টি কারণ কেন মিন্ট উবুন্টুর থেকে ভালো

কোনটা বেশি ভালো লিনাক্স মিন্ট নাকি উবন্টু ?

এই প্রশ্ন টা সেদিন  থেকেই জনপ্রিয় যেদিন থেকে লিনাক্স মিন্ট জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে। এই  আর্টিকেল সেই প্রশ্নের উত্তর দেবে না থিক তবে অন্য একটা বিষয়ে গভীর আলোচনা  হবে।

তো তাহলে কি বিষয়ে এই আর্টিকেল ?

আমি অনেকদিন ধরেই  উবুন্টু ব্যবহার করছি। আমি বারবার অন্যান্য লিনাক্স ডিস্ট্রো গুলোতে সুইচ  করলেও সবশেশ ফিরে আসতে হয় এই উবুন্টুর কাছেই, আজ হোক কিংবা কাল। তবে আমি  লিনাক্স মিন্ট ব্যবহার করে যে মজাটা পেয়েছি সেটা যে উবুন্টুর থেকেও বেশ  ভালো সেটাই আজকে মূলত বলার চেষ্টা করব।

৪ টি কারণ কেন মিন্ট উবুন্টুর থেকে ভালো
৪ টি কারণ কেন মিন্ট উবুন্টুর থেকে ভালো

 

এমন কিছু বিষয় আছে যেখানে  লিনাক্স মিন্ট, উবুন্টুর তুলনায় অনেক ভালো পারফর্ম করে এবং সেই সাথে অনেক  বেশি ভালো এক্সপেরিয়েন্স সার্ভ করে থাকে। আর লিনাক্স মিন্ট বলতে গেলে  বিগিনার ফ্রেন্ডলি হওয়াতে এর ডিফল্ট ফিচার গুলো আসলেই মুগ্ধ করে।

যেহেতু আমি দুইটাই খুব ভালো মতো ব্যবহার করেছি তাই আশা করছি এই দুইটার তুলনা আমি বেশ ভালই করতে পারব।

 তবে এই আলোচনা এবং তুলনা হবে মূলত একজন বিগিনার এর পয়েন্ট অফ ভিউ থেকে। হয়ত  উইন্ডোজ থেকে লিনাক্সে সুইচ করেছে এমন কেউ বেশি সুবিধা পাবেন এই আর্টিকেল  থেকে।

৪ টি কারণ কেন মিন্ট উবুন্টুর থেকে ভালো

আলোচনা সাপেক্ষে বলা যেতে পারে লিনাক্স মিন্ট এবং উবুন্টু হচ্ছে বহুল জনপ্রিয় দুটি লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন। তবে মজার বিষয় হচ্ছে উবুন্টু যেখানে ডেবিয়ান বেজড সেখানে  লিনাক্স মিন্ট আবার উবুন্টু বেজড।

এখন প্রশ্ন হতে পারে উবুন্টুর একটা সাব সেট ডিস্ট্রো আবার উবুন্টুর থেকে ভালো কিভাবে হয়? সেক্ষেত্রে বলতে হবে উবুন্টু ও কিন্তু ডেবিয়ান হলেও ইউজার লাইফ কে করেছে অনেক ইজি যেটা ডেবিয়ান এ ছিল না।

এবং তুলনা শুরু করার পুর্বেই বলে নেয়া ভালো যে আমরা এখানে Ubuntu Gnome এবং Linux Mint Cinnamon ডেস্কটপ এনভাইরোমেন্ট নিয়ে কথা বলব। অন্য ডেস্কটপ এনভাইরোমেন্ট এর ক্ষেত্রে খুব কম বিষয়ই চেঞ্জ হবে।

১। Gnome এর তুলনায় Cinnamon এর কম মেমোরি ব্যবহার করা

লিনাক্স মিন্ট টেকনিক্যালি সেই বিষয়গুলো উবুন্টু থেকে বাদ দেয় যেগুলোকে অপ্রয়োজনীয় বলে মনে করে। এবং স্বভাবতই এই সিস্টেম ফলো করলে ফাস্টার ইউজার এক্সপেরিয়েন্স পাওয়া যায়। অবশ্যই Gnome এর পরিবর্তে Cinnamon ব্যবহার করা তেমনি একটা কারণ বা উপায়।

যদিও পার্থক্য খুব বেশি হয় না তবুও লিনাক্স মিন্ট যথা সাধ্য চেষ্টা করে উবুন্টুর তুলনায় বেশি ফাস্ট এবং লাইট এক্সপেরিয়েন্স দিতে। এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে মেমোরি কন্সাম্পশন নির্ভর করে আপনি কোন কোন এপ চালাচ্ছেন সেটার উপরে তবুও ডিফল্ট ভাবে উবুন্টুর তুলনায় লিনাক্স মিন্ট কম মেমোরি ব্যবহার করে থাকে। আর সেকারণে পুরাতন কনফিগারের কম্পিউটার গুলোর জন্য লিনাক্স মিন্ট আদর্শ।

অবশ্যই, যদি আপনার কোর আই ৭ এবং ১৬ জিবি র‍্যাম থেকে থাকে তাহলে এটা কোন বিষয় না যে কোন এনভাইরোমেন্ট ব্যবহার করবেন তবে যদি কোর আই ৩ এবং 4 জিবি র‍্যাম বা তার তুলনায় কম কোন কনফিগার আপনি ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে অবশ্যই cinnamon ই জিতে যাবে।

যদিও আপনি চাইলে উবুন্টুতেও Cinnamon ইন্সটল করতে পারবেন তবুও আমরা এখানে ডিফল্ট এনভাইরোমেন্ট নিয়ে কথা বলছি।

২। সফটওয়ার ম্যানেজারঃ ফাস্ট এবং লাইট

উবুন্টুর সফটওয়ার সেন্টার যেমন বেশি রিসোর্স ব্যবহার করে ঠিক তেমনি লোড হতেও নেয় অনেক বেশি টাইম। যদিও আগের তুলনায় উবুন্টু এটাকে অনেক বেটার করেছে তবুও উবুন্টু 20.4 আপডেটের পরেও এর সফটওয়ার সেন্টারের খুব বেশি উন্নতি হয়নি, আপডেট কিংবা ইন্সটল করতে গেলে এপ ফ্রিজ হওয়ার মতো ঘটনাও সাধারণ।

অন্যদিকে লিনাক্স মিন্ট এর সফটওয়ার সেন্টার যেমন ফাস্ট তেমনি লাইট। যেমন কম রিসোর্স ব্যবহার করে তেমনি চালাতে গেলেও পাবেন স্মুথ পারফর্ম্যান্স।

৩। থিম, এপলেট এবং ডেস্কলেট

আমি বলছি না যেন উবুন্টু তে থিম ইন্সটল করা কোন রকেট সায়েন্সের মতো ব্যাপার। তবে লিনাক্স মিন্ট এক্ষেত্রে আসলেই বেশ ভালো কাজ করে।

প্রথমত আপনাকে শুধুমাত্র থিম চেঞ্জ করতে গিয়ে Gnome Tweak এর মতো কোন টুল ইন্সটল করতে হবেনা। এটা আগে থেকেই আপনাকে সেটিং এ গিয়ে টুইক করার সুযোগ দেয়। এবং আপনি সেটিং থেকেই চাইলে আপনার চাহিদা মত যেকোন থিম কমিউনিটি সেন্টার থেকে ইন্সটল করে নিতে পারবেন।

অন্যদিকে উবুন্টুতে এই সুযোগ নেই। আপনি এত সহজে কোন থিম ইন্সটল করতে পারবেন না। ইন্সটল করার জন্য থিম ডাউনলোড করে তারপরে সেটা ইন্সটল করতে হবে।

একইভাবে, লিনাক্স মিন্টে আলাদা করে সেটিং অপশন আছে শুধুমাত্র এপলেট এবং ডেস্কলেট চেঞ্জ বা এন্ট্রি করার জন্য। এবং আপনি অনলাইন এক্সেস ও পাবেন নতুন নতুন এপলেট এবং ডেস্কলেট এর জন্য। যেটার সুযোগ উবুন্টুতে একেবারেই নেই।

তাই, যারা তাদের ডেস্কটপ কে অন্যরকম করে সাজাতে চান তাদের জন্য লিনাক্স মিন্ট অনেক সহজ এবং বেশি সুযোগ দিয়ে থাকে যেটা উবুন্টুতে অনুপস্থিত।

৪। আর বেশি লং টাইর্ম সাপোর্ট এর ডেস্কটপ চয়েস

উবুন্টু এবং লিনাক্স মিন্ট উভয় তাদের সিস্টেম আপডেট দিয়ে ৫ বছরের জন্য। তবে উবুন্টু শুধুমাত্র তাদের Gnome ডেস্কটপ এনভাইরোমেন্ট এর জন্য ৫ বছরের লং টার্ম সাপোর্ট দেয়।

আপনি যদি কুবুন্টু, লুবুন্টু কিংবা উবুন্টুর অন্য কোন অফিশিয়াল ফ্লেভার ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে ৩ বছরের বেশি সিস্টেম আপডেট পাবেন না।

কিন্তু লিনাক্স মিন্ট এর সাথে এটা কোন ব্যাপার না যে আপনি কোন ডেস্কটপ চয়েস করছেন আপনি সব ক্ষেত্রেই পাবেন ৫ বছরের আপডেট সিস্টেম।

আমার মনে হয় উবুন্টুর তুলনায় লিনাক্স মিন্ট কে এই কারণেই অনেক এগিয়ে রাখা যায়।

পরিশেষে

তো আজকের মতো এখানেই শেষ করছি, দেখা হবে ইনশাল্লাহ আগামী একটা আর্টিকেল এ। সেখানে আলোচনা করার চেষ্টা করব ইনশাল্লাহ নতুন কোন বিষয় নিয়ে।

সেই অবধি ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন, ফিহ আমানিল্লাহ।

You Might Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *